নতুন খবর

ধর্ষক খ্রিস্টান ধৰ্মগুরুর বিরুদ্ধে একমাত্র সাক্ষীকে হত্যা করে দেওয়া হলো। নিশ্চুপ মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবীর দল।


যদি ভারতে কোনো হিন্দু ধর্মগুরুর উপর শীলতাহানির মিথ্যা অভিযোগ করা হয়, তাহলে তাকে কমপক্ষে ৫ বছর জেলে আটকে রাখা হবে এবং মিডিয়া ঘটনাটিকে পুরো মাস ঘোরাতেই থাকবে। অন্যদিকে যদি কোনো অন্য ধর্মের ধর্মগুরু তাহলে মিডিয়াও চুপ একইসাথে ভারতের ন্যায় ব্যাবস্থার উপরেও বেশ ভালো রকম পরিবর্তন লক্ষ করা যায়। সম্প্রতি নান ধর্ষণ কেসে গেপ্তার হয়েছিল খ্রিস্টান ধর্মগুরু পাদরি ফ্রাঙ্ক মুল্লাকাল। কিন্তু ভারতে খ্রিষ্টান মিশনারিদের ক্ষমতা কতটা তা আরো একবার প্রমান হয়েগেল যখন মাত্র কয়েক দিনের মাথায় পাদরি জামানত পেলো।

এর জন্য তনুশ্রী দত্তকে আমেরিকা থেকে ভারতে পাঠিয়ে me too অভিযান চালিয়ে পুরো প্ল্যান করে পাদরির মামলা ধামাচাপা দেওয়া হয়েছিল। তবে ঘটনা এখানেই থেমে থাকেনি, এরপর যা হয়েছে তা আপনার চোখ কপালে তুলে দেবে। তার আগে আপনাদের জানিয়ে দি, ভারতে রেলের পর সবথেকে বেশি সম্পত্তি খ্রীষ্টান মিশনারীদের কাছে রয়েছে। এমনকি ভারতীয় সেনার থেকেও বেশি জমি খ্রিষ্টান মিশনারিদের কাছে আছে। অর্থাৎ ভারতে খ্রিষ্ঠান মিশনারীরা কোনো সামান্য ক্ষমতার অধিকারী নয় বরং ভারতের সমস্থ ক্ষেত্রে এদের প্রভাব পৌঁছে গেছে।

জানিয়ে দি পাদরি জেল থেকে জামানত পাওয়ার পরে তার বিরুদ্ধে সাক্ষী দেওয়া ব্যাক্তিকে হত্যা করে দেওয়া হয় এবং মিডিয়া এই নিয়ে কোনো ডিবেট শো করেনি আর কোনো প্রাইম টাইমও করেনি। প্রিস্ট কুরিয়াসিকো যিনি পাদরির বিরুদ্ধে সাক্ষী ছিলেন তার মৃতদেহ ২২ তারিখ সন্দিগ্ধ অবস্থায় পাওয়া গেছে। ফ্রাঙ্ক মুল্লাকাল বহুবার নানকে ধর্ষণ করেছিল যার সাক্ষী প্রিস্ট কুরিয়াসিকো দিয়েছিলেন।

যখন থেকে পাদরি ফ্রাঙ্ক মুল্লাকাল জেলের বাইরে এসেছিল তখন থেকে প্রিস্ট কুরিয়াসিকো এর প্রানের উপর সংকট প্রকাশ করা হচ্ছিল এবং শেষপর্যন্ত তাকে হত্যা করে দেওয়া হলো। প্রিস্ট কুরিয়াসিকো পুলিশকে ধর্ষণের সাক্ষী দিয়েছিল কারণ নান ভয়ে পুলিশের কাছে আসতে চায়নি। নানকে ১৩ বার ধর্ষণ করেছিল পাদরি ফ্রাঙ্ক মুল্লাকাল এটা প্রিস্ট কুরিয়াসিকো জানিয়েছিল।



24 Ghanta

24 Ghanta Live News

Tags

Related Articles

Close